রোববার, ১৭ ডিসেম্বর ২০১৭, ৩ পৌষ ১৪২৪, ২৮ রবিউল আওয়াল, ১৪৩৯ | ১১:৩০ অপরাহ্ন
বুধবার, ২৩ আগস্ট ২০১৭ ০৪:৩৭:৫৬ পূর্বাহ্ন Zoom In Zoom Out No icon

'উ.কোরিয়াকে পরমাণু নিরস্ত্রীকরণে আলোচনাই একমাত্র উপায়'

উত্তর কোরিয়াকে পরমাণু নিরস্ত্রীকরণ করতে আলোচনাই একমাত্র উপায় বলে মন্তব্য করেছেন জ্যেষ্ঠ মার্কিন সিনেটর এডওয়ার্ড মার্কি। দক্ষিণ কোরিয়া সফরকালে এক সংবাদ সম্মেলনে, সহিংস অবস্থান থেকে কোরীয় উপত্যকায় কোনো সমাধান সম্ভব নয় বলে মন্তব্য করেন তিনি।

এদিকে, যুক্তরাষ্ট্র ও দক্ষিণ কোরিয়ার মধ্যকার সামরিক মহড়া কোরীয় সংকটকে আরো উস্কে দেবে বলে সতর্ক করেছে চীন। একইভাবে দু'দেশের যৌথ সামরিক মহড়ায় পরমাণু যুদ্ধ ছড়িয়ে পড়ার আশঙ্কা বাড়ছে বলে হুঁশিয়ার করেছে পিয়ংইয়ং।

দক্ষিণ কোরিয়ার উত্তরাঞ্চলীয় গোয়াং শহরের 'ইন্টারন্যাশনাল এক্সিবিশন অ্যান্ড কনভেনশন সেন্টারে' চলছে যুক্তরাষ্ট্র ও দক্ষিণ কোরিয়ার যৌথ সামরিক মহড়া। উত্তর কোরিয়ার পরমাণু কর্মসূচির বিরুদ্ধে যুদ্ধের প্রস্তুতি হিসেবে চলছে এবারের মহড়া। যেখানে প্রদর্শন করা হয় সন্ত্রাসী ও রাসায়নিক হামলা মোকাবিলার নানা কৌশল। এতে অংশ নেয় শহরের ২শ'র বেশি পুলিশ, সেনা ও দমকলকর্মী।

কোরীয় উপত্যকার উত্তেজনা নিরসনে এ সামরিক মহড়া চালানো হলেও একে পরমাণু যুদ্ধের ক্ষেত্রে উস্কানিমূলক পদক্ষেপ হিসেবে দেখছে পিয়ংইয়ং। সোমবার উত্তর কোরিয়ার রাষ্ট্রীয় টেলিভিশন 'কে আর টি'-তে সামরিক মহড়াকে আক্রমণাত্মক হিসেবে উল্লেখ করা হয়।

পিয়ংইয়ং-এর সঙ্গে একমত পোষণ করেছে চীনও। চীনের পররাষ্ট্র মন্ত্রণালয় বলছে, যুক্তরাষ্ট্র ও দক্ষিণ কোরিয়ার যৌথ সামরিক মহড়া কোরীয় উপত্যকার চলমান সংকট কমাবে না বরং সমস্যাকে আরো উস্কে দেবে।

তিনি বলেন, 'কোরীয় উপত্যকার বর্তমান পরিস্থিতি অত্যন্ত জটিল ও নাজুক। পরিস্থিতি মোকাবিলায় এ ইস্যুর সঙ্গে সরাসরি যুক্ত উত্তর কোরিয়া, দক্ষিণ কোরিয়া এবং যুক্তরাষ্ট্রকে আরো বাস্তবসম্মত পদক্ষেপ নিতে হবে। চলমান উত্তেজনা কমাতে যুক্তরাষ্ট্র ও দক্ষিণ কোরিয়ার যৌথ সামরিক মহড়া কাজে দেবে বলে আমাদের মনে হয় না।'

এর মধ্যেই দক্ষিণ কোরিয়া সফর করেছেন জ্যেষ্ঠ মার্কিন সিনেটর এডওয়ার্ড মার্কি। সিউলে দেশটির প্রেসিডেন্ট মুন জায়-ইন ও পররাষ্ট্রমন্ত্রীর সঙ্গে সাক্ষাৎ শেষে এক সংবাদ সম্মেলনে, উত্তর কোরিয়ার সঙ্গে আলোচনার মধ্য দিয়ে সংকট সমাধানের আহবান জানান এডওয়ার্ড মার্কি। সহিংস অবস্থান থেকে কোরীয় উপত্যকায় কোন সমাধান সম্ভব নয় বলে মন্তব্য করেন তিনি।

তিনি বলেন, 'আমাদের এটা স্বীকার করতেই হবে যুদ্ধের প্রস্তুতি কখনোই কোরীয় সমস্যার সমাধান এনে দেবে না। এতে কেবল সংকট আরো ঘনীভূত হবে। উত্তর কোরিয়াকে পরমাণু নিরস্ত্রীকরণ করতে হলে আলোচনার মাধ্যমে চুক্তি হওয়া খুবই জরুরী।'

এদিকে, মার্কিন নিয়ন্ত্রণাধীন গুয়াম দ্বীপে উত্তর কোরিয়ার হামলার পরিকল্পনা ও চলমান উত্তেজনার মধ্যে কেবল স্বাভাবিক জীবন যাত্রাই নয় এর বিরূপ প্রভাব পড়েছে ছোট দ্বীপটির পর্যটন খাতে।

হামলার আশঙ্কায় পর্যটকের সংখ্যা কমে এসেছে উল্লেখ করে দ্বীপটিতে স্বাভাবিক পরিস্থিতি ফিরিয়ে আনতে নানা পদক্ষেপ গ্রহণ করা হয়েছে বলে স্থানীয় প্রশাসনের পক্ষ থেকে জানানো হয়েছে।

আরো খবর